বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০২৪, ০৬:৪০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
শেখ মিলি পরিচয়ে করছেন প্রতারণা : চাকরি দেওয়ার নামে হাতিয়েছেন কয়েক লক্ষ টাকা-১ সানাকে উপজেলা চেয়ারম্যান বিজয়ী করতে আট চেয়ারম্যান মেয়র একট্টা সাংবাদিককে অবৈধ ভবন মালিক কর্তৃৃক হত্যার হুমকি, থানায় জিডি কার ইশারায় বহাল তবিয়তে ফায়ার সার্ভিসের দুর্নীতিবাজ এডি আনোয়ার! এবার বিআরটিসির অপতৎপরতাকারীদের বিরুদ্ধে রাজধানীর পল্টন থানায় মামলা বিআরটিসিতে জাতীয় শুদ্ধাচার কৌশল কর্মপরিকল্পনার আওতায় গণশুনানী অনুষ্ঠিত ১১৫ কোটি টাকার ক্ষতির মুখে বিআরটিসি!  টুঙ্গিপাড়ায় একাধিক মামলার ওয়ারেন্টভুক্ত আসামী তাহিন শেখ কে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ মুন্সিগঞ্জের লৌহজংয়ে মানবসেবা রক্তদান সংস্থার ৫ম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন ও রক্ত দাতাদের সম্মাননা স্বারক প্রদান আসন্ন দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করলেন শেখ সেলিম এমপি

দাতা সংস্থা গুলোর কাছে ৬৫০ কোটি ডলার ঋণ চেয়েছে বাংলাদেশ

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ৪ সেপ্টেম্বর, ২০২২
  • ৩১০ Time View

নিজস্ব প্রতিবেদক: বাংলাদেশ এখন পর্যন্ত বিশ্বের বিভিন্ন দাতা সংস্থা গুলোর কাছে এ পর্যন্ত ৬৫০ কোটি (৬.৫ বিলিয়ন) মার্কিন ডলার ঋণ সহায়তা চেয়েছে। যা বৈশ্বিক সংকট মোকাবিলায় বাজেট সহায়ক হিসেবে কাজ করবে।

এর মধ্যে ৪৫০ কোটি (৪.৫ বিলিয়ন) ডলার চাওয়া হয়েছে আইএমএফের কাছে। বিশ্ব ব্যাংকের কাছে ১০০ কোটি (১ বিলিয়ন) ডলার এবং এডিপির কাছে চাওয়া হয়েছে ১০০ কোটি (১ বিলিয়ন) ডলার। ঋণ প্রস্তাবগুলো নিয়ে আলোচনা চলছে। ঋণ মঞ্জুরের পর অর্থ রাষ্ট্রীয় কোষাগারে জমা হলে প্রকল্পসহ যে কোনো খাতে ব্যয় করা যাবে। বাজেট সহায়তা হিসাবে পাওয়া ঋণে এ সুযোগ আছে এবং সরকার সেটা কাজে লাগাতে পারে। যদিও এ বছর ঘাটতি বাজেট পূরণের জন্য বিদেশি ঋণের প্রয়োজন প্রায় ১২শ কোটি (১২ বিলিয়ন) মার্কিন ডলার। সংশ্লিষ্ট সূত্রে পাওয়া গেছে এসব তথ্য।

বিশ্লেষকদের মতে, বাজেট সহায়তার এ ঋণ পাওয়া গেলে, সরকারের সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচি, অর্থনীতি পুনরুদ্ধার, বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি বাস্তবায়নসহ নানা কর্মসূচিতে ব্যবহার করা হবে। বিশেষ করে নির্বাচনের আগের অর্থ বছরে অনেক ধরনের প্রকল্প থাকে সেখানেও এ টাকা ব্যয়ের সুযোগ আছে। তবে ডলার সংকটের মধ্যে বিদেশি ঋণ পাওয়ার পর রিজার্ভ বাড়ানোর দিকেও সরকারের মনোযোগ থাকবে বলে তারা মনে করেন। অর্থাৎ দেশের মানুষের তেমন প্রয়োজন নেই এমন কোনো খাতে এ ঋণের টাকা ব্যয় হবে না সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে।

এছাড়া রাজনৈতিক দল গুলোও ঋণের টাকা ব্যয়ের বিরোধিতায় নামতে পারে এমন সুযোগ দেওয়া ঠিক হবে না। গত অর্থ বছরে (২০২১-২২) বাজেট সহায়তা হিসাবে আইএমএফসহ বিভিন্ন দাতা সংস্থার কাছে থেকে ৭৩২ কোটি (৭.৩২ বিলিয়ন) ডলার ঋণ সহায়তা পাওয়া গেছে। এ টাকা সরকার নিজের প্রয়োজন মতো ব্যয় করেছে।

এদিকে অর্থ মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে আইএমএফের কাছে পাঠানো চিঠির জবাব আমরা এখনও পাইনি। সংস্থাটি সরকারের দেয়া প্রস্তাব পর্যালোচনা করবে। তাদের আরেকটি টিম বাংলাদেশে আসবে। তাদের সঙ্গে নেগোসিয়েশন হবে। তারপর ঋণ পাওয়ার বিষয়টি চূড়ান্ত হবে। এসব প্রক্রিয়া শেষ করে ঋণ পেতে সময় লাগবে। আইএমএফের কাছ থেকে আনুষ্ঠানিক কোনো বিবৃতি আমরা এখনও পাইনি।

আইএমএফের দেয়া বিবৃতিতে বলা হয়, ইউক্রেনে যুদ্ধের জের ধরে বিশ্ব অর্থনীতিতে যে অস্থিরতা তৈরি হয়েছে, তা সামাল দিতে ইতোমধ্যে বেশ কিছু উদ্যোগ নিয়েছে বাংলাদেশ।

সরকার মুদ্রা প্রবাহ নিয়ন্ত্রণে পদক্ষেপ নিয়েছে, মুদ্রা বিনিময় হার শিথিল করেছে, কম জরুরি পণ্য এবং জ্বালানি আমদানিতে সাময়িক কড়াকড়ি আরোপ করেছে। বিদ্যুৎ খরচ কমাতে বিভিন্ন উদ্যোগ নিয়েছে। পাশাপাশি কম জরুরি প্রকল্পে বরাদ্দ স্থগিত করে বেশি জরুরি খাতে ব্যবহারের নির্দেশনা জারি করা হয়েছে। তারপরও আরও অনেক দেশের মতো বাংলাদেশ সাম্প্রতিক বৈশ্বিক সংকটের কারণে বিভিন্ন অর্থনৈতিক চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হচ্ছে।

আইএমএফ বলছে, তাৎক্ষণিক চ্যালেঞ্জ গুলো মোকাবেলা করতে পারলেও বাংলাদেশ জলবায়ু পরিবর্তনের মতো দীর্ঘ মেয়াদি সমস্যা গুলো সঠিক ভাবে সামাল দেয়ার প্রয়োজনীয়তা অনুভব করছে। কারণ এ সব সমস্যা দেশের অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতার জন্য হুমকি তৈরি করতে পারে।

বিবৃতিতে আরও বলা হয়, এ ধরনের ক্ষেত্রে অর্থায়নে সহযোগিতা দিতেই তারা আরএসটি ফান্ড গঠন করেছে এবং বাংলাদেশও এই তহবিল থেকে অর্থ পেতে পারে। আর এই তহবিল থেকে ঋণ পেতে হলে আইএমএফ-সমর্থিত প্রকল্প নিতে হবে।

বাংলাদেশের অনুরোধে সাড়া দিতে আইএমএফ প্রস্তুত। আশা করা হচ্ছে, আগামী কয়েক মাসের মধ্যে বাংলাদেশের জন্যও আরএসটি ফান্ড সচল হয়ে যাবে। আর এই সময়ে আইএমএফ কর্মীরা প্রকল্প চূড়ান্ত করতে বাংলাদেশ সরকারের সঙ্গে আলোচনা এগিয়ে নেবে।

অর্থ মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, সরকার বাজেট সহায়তা হিসেবে আইএমএফ ছাড়াও তিনটি সংস্থার কাছে ঋণ চেয়েছে। বিশ্ব ব্যাংকের কাছে ১০০ কোটি ডলার ঋণ চাওয়া হয়েছে। জাইকার কাছেও ঋণ সহায়তা চাওয়া হয়েছে। এছাড়া এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকের কাছে ১০০ কোটি ডলার ঋণ চাওয়া হয়েছে।

সব মিলে ৬৫০ কোটি ঋণ ডলার সহায়তা চেয়েছে সরকার। স্থানীয় মুদ্রায় এর পরিমাণ ৬১ হাজার ৫৫৫ কোটি টাকা। অবশ্য এই হিসাবে বাংলাদেশ ব্যাংক নির্ধারিত ডলারের দর হিসাবে। তবে আন্তব্যাংক লেনদেন ও কার্ব মার্কেটে ডলারের দর ধরলে চাহিদা জানানো ঋণের পরিমাণ টাকার অংকে আরও বেশি হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2022 agamirbangladesh24.com
Developed by: A TO Z IT HOST
Tuhin